বাতাসি মাছ দেখতে যেমন সুন্দর, তেমনি দারুণ লাগে খেতে

বাতাসি মাছ দেখতে যেমন সুন্দর, তেমনি দারুণ লাগে খেতে

অঞ্চলভেদে বাতাই, তিনকাটা, পাতাসি, পাতসি নানা নামে পরিচিত বাতাসি মাছ। এ মাছ দেখতে যেমন সুন্দর, তেমনি দারুণ লাগে খেতে। 


বৈজ্ঞানিক শক্ত নামে না গিয়ে চলুন জেনে নেই বাতাসি মাছ নিয়ে কিছু তথ্য। আমাদের দেশ ছাড়াও ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, মায়ানমারে বাতাসি মাছ পাওয়া যায়। 

একসময় প্রচুর পাওয়া যেতো এই মাছ। কিন্তু, এখন বিলুপ্তপ্রায়। বর্তমানে হাওড় অঞ্চল, পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদসহ অল্প কয়েকটি নদীতে বাতাসি ধরা পড়ে। পরিমাণে কম পাওয়া যায়, আবার চাহিদা বেশি থাকার কারণে বাজারে এর দাম বেশ চড়া। 

এখন পর্যন্ত বাতাসি মাছ চাষ শুরু হয়নি। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফআরআই) এর একদল গবেষক বাতাসি মাছের কৃত্রিম পোনা উৎপাদনে সফল হয়েছেন। আরো পরীক্ষা- নিরীক্ষা চলছে, অদূর ভবিষ্যতে হয়তো বাতাসি চাষ শুরু হবে। তখন বিলুপ্তপ্রায় এই মাছের জাত সংরক্ষিত হবে। 

সব ধরনের ছোট মাছই পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ। সে হিসেবে বাতাসি মাছেও পুষ্টি অনেক। প্রতি ১০০ গ্রাম খাবার উপযোগী বাতাসি মাছে পটাশিয়াম ৬১০ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ৪০০ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেসিয়াম ২০০ মিলিগ্রাম, জিঙ্ক ১৪.৪ মিলিগ্রাম, আয়রন ৩৩.০ মিলিগ্রাম এবং ম্যাঙ্গানিজ ২০০ মিলি গ্রাম রয়েছে। যা অন্যান্য দেশীয় ছোট মাছের তুলনায় অনেক বেশি। জিঙ্ক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে বাতাসি মাছ। 

অঞ্চল্ভেদে বিভিন্ন ভাবে রান্না করা হয়। নতুন রাধঁনিদের জন্য রইলো সহজ দুটা রেসিপি---

রেসিপি ১- হাতমাখা বাতাসি মাছ
উপকরণ:

বাতাসি মাছ ২৫০ গ্রাম, মিষ্টি আলুকুচি (মোটা করে) ১ কাপ, পেঁয়াজকুচি আধা কাপ, কাঁচা মরিচ ৪-৫টি, লেবুর রস ১ টেবিল চামচ, মটরশুঁটি আধা কাপ, হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, মরিচ গুঁড়া আধা চা-চামচ, আদাবাটা আধা চা-চামচ, রসুনবাটা আধা চা-চামচ, সরিষার তেল আধা কাপ, ধনেপাতা কুচি অল্প, লবণ পরিমাণমতো।
প্রণালি: মাছ বেছে লবণ দিয়ে পরিষ্কার করে ধুয়ে নিতে হবে। লেবু ও ধনেপাতা বাদে বাকি সব উপকরণ রান্নার পাত্রে নিয়ে মাখাতে হবে এবং হাত ধুয়ে সামান্য পানি দিতে হবে। জোর জ্বালে ঢেকে রান্না করতে হবে। ঝোল শুকিয়ে এলে লেবুর রস ও ধনেপাতা দিতে হবে। পাত্রের গায়ে লেগে চচ্চড়ি হলে নামিয়ে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন।


 
রেসিপি ২- 
পাঁচফোড়নে বাতাসি মাছের ঝোল

উপকরণ
বাতাসি মাছ ২৫০ গ্রাম। পাঁচফোড়ন আধা চা-চামচ। হলুদগুঁড়া আধা চা-চামচ। পেঁয়াজকুচি ৩ টেবিল-চামচ। কাঁচামরিচ ফালি ৪-৫টি। লবণ স্বাদ অনুযায়ী। মরিচগুঁড়া আধা চা-চামচ। সরিষার তেল পরিমাণমতো। পানি ১ কাপ।
পদ্ধতি
মাছ কেটে নিন নিয়মমতো। এরপর লবণ দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিন। যারা বিদেশে থাকেন তারা লেবু অথবা ভিনেগার দিয়ে মাছ ধুয়ে নিন।  
এরপর পানি ঝরিয়ে রাখুন।
একটি পাত্রে তেল গরম করে এতে পাঁচফোড়ন, পেঁয়াজকুচি দিয়ে হালকা ভেজে নিন। সব গুঁড়ামসলা আর স্বাদ অনুযায়ী লবণ দিয়ে মসলা কষিয়ে নিন। তারপর এতে মাছ বিছিয়ে দিন।
পরিমাণমতো পানি এবং কাঁচামরিচ দিয়ে ঢেকে পাঁচ থেকে ১০ মিনিট রান্না করে নামিয়ে পরিবেশন করুন।
নাড়বেন না। নইলে মাছ ভেঙে যাবে।

Back to blog